সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন

Notice :
Welcome To Our Website...
সংবাদ শিরোনাম :
magura আ,লীগ প্রার্থী সাইফুজ্জামান শিখরের নৌকা প্রতিক গ্রহন ঐক্যফ্রন্ট ও জোটের ৬০ প্রার্থী জামায়াত-এলডিপিসহ ২০ দল ৪০ গণফোরাম ৭ জেএসডি ৫ নাগরিক ঐক্য ৫ কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ৩ জাপার সঙ্গে আ.লীগের আসন জটিলতা কাটেনি মাগুরায় মুক্ত দিবসে বিজয় র‌্যালী উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট দিন -সাইফুজ্জামান শিখর মাগুরায় গ্রাম-পুলিশদের জন্য থানা চত্তরে বিশ্রামাগার নির্মান কোনো অপশক্তিই নৌকার গতি রোধ করতে পারবে না : আব্দুর রহমান মাশরাফি’র ভোট ক্যাম্পেইন করতে নাগরিক প্লাটফরম গঠনের উদ্যোগ এইচআইভি সম্পর্কে আপনার ভুল ধারণাগুলো শুধরে নিন যশোরে তৈরি ক্যারম বোর্ড যাচ্ছে সারা দেশে
এমপিওভুক্তির আবেদন ১৫ জুলাইয়ের পর

এমপিওভুক্তির আবেদন ১৫ জুলাইয়ের পর

নিউজ ডেস্ক :
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আগামী ১৫ জুলাইয়ের পর নতুন আবেদন গ্রহণ করা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সম্ভাব্য এই তারিখ সামনে রেখে যাবতীয় প্রস্তুতি নিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় গঠিত এ-সংক্রান্ত দুই কমিটি। বুধবার রাজধানীর নীলক্ষেতের ব্যানবেইস ভবনে কমিটির দ্বিতীয় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
কমিটির এক সদস্য জানান, সভায় কমিটির কাজের ধরন, কৌশলসহ নানা বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। নতুন নীতিমালা অনুযায়ী অনলাইন সফটওয়্যার তৈরি, বাছাই প্রক্রিয়া ও যোগ্যতা নিরূপণের মাধ্যমে ক্রমিক তৈরির বিষয়ও আলোচনায় উঠে এসেছে।
১৫ জুলাই থেকে আবেদন গ্রহণের লক্ষ্যে কমিটি কাজ করছে জানিয়ে দায়িত্বশীল একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, নতুন নীতিমালার আলোকে সফটওয়্যার তৈরির কাজ চলছে। এতে কিছুটা সময় লাগতে পারে। তাড়াহুড়া না করে নির্ভুলভাবে সফটওয়্যার তৈরি করা হবে। এরপর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
এর আগে গত ২০ জুন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার জন্য আবেদন বাছাই ও অনলাইন ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর ১৫ জুন কমিটির প্রথম সভায় কর্মপরিকল্পনা গুছিয়ে নেওয়া হয়।
সূত্র জানায়, এক একটি প্রতিষ্ঠানে এবার মাত্র একটি স্তরে এমপিও দেয়া হবে। অর্থাৎ, কোনো প্রতিষ্ঠান ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণীর হলে সেখানে হয় নিুমাধ্যমিক (অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত) বা মাধ্যমিক (নবম-দশম) স্তরে এমপিওভুক্ত করা হবে। সফটওয়্যার সেভাবে তৈরি হচ্ছে।
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদ জানান, এমপিওর নতুন নীতিমালা অনুযায়ী অনলাইন সফটওয়্যার তৈরির পর নতুন করে অনলাইনের নির্ধারিত ছকে আবেদন নেওয়া হবে। এরপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গ্রেডেশন তালিকা করা হবে। ফলে বিভিন্ন সময়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে দেওয়া পুরনো আবেদন (হার্ডকপি) কোনো কাজে আসবে না।
অনলাইন আবেদন বাছাই কমিটির সদস্য মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব (মাধ্যমিক) সালমা জাহান বলেন, ‘আবেদন ফরম নিয়ে কাজ করছি। সময় লাগবে। ১৫ জুলাইয়ের পর আবেদন গ্রহণ করা হতে পারে।’
এর আগে ২০১০ সালে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়। এরপর এমপিওভুক্তি বন্ধ রয়েছে। নতুন করে এমপিওভুক্তির দাবিতে তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আন্দোলন করছেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা।
এদিকে, নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির দাবিতে শিক্ষকরা ২৬ দিন ধরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আন্দোলন করছেন। এর মধ্যে ১১ দিন ধরে আমরণ অনশন করছেন তারা। অনশন শুরুর পর শিক্ষকরা অসুস্থ হওয়া শুরু করলে একদিকে স্যালাইন দিয়ে রাখা হচ্ছিল। আরেক দিকে বেশি অসুস্থদের হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছিল। কিন্তু ২৬ দিনেও কোনো সাড়া না পেয়ে শিক্ষকরা বুধবার থেকে চিকিৎসা নেয়া বন্ধ করে দিয়েছেন।
আমরণ অনশনরত শিক্ষকদের সংগঠন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ড. বিনয়ভূষণ রায় বলেন, আমরা ১১ দিন না খেয়ে থাকার পরও নানা বাজে কথা শুনছি। রাতে গোপনে নাকি খাচ্ছি। মন্ত্রণালয়ের কিছু লোক এ কথা বলছে। তাদের খুশি করতে এখন আমরা চিকিৎসা সেবা নেয়াও বন্ধ করে দিয়েছি। বুধবার এ কর্মসূচি শুরু করেছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




  • ডিজাইনঃবেসিক নিউস২৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com