বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন

কুলাউড়া-রাজনগরের শতাধিক গ্রাম প্লাবিত

কুলাউড়া-রাজনগরের শতাধিক গ্রাম প্লাবিত

মৌলভীবাজার সংবাদদাতা :
টানা বৃষ্টিতে উজান থেকে নেমে আসা ভারতীয় পাহাড়ি ঢলের পানি বেড়ে মৌলভীবাজারের মনু নদী বিপদসীমার ১৭৭ সে.মি এবং ধলাই নদী ৫৩ সে.মি উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। কুলাউড়ার চাতলা চেক পোষ্ট দিয়ে বাংলাদেশ-ভারত সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে দুই দেশে যাতায়াতকারী অনেক যাত্রীকে আটকা পড়তে দেখা যায়।
বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে শরীফপুরের সঙ্গে কুলাউড়া উপজেলা সদরের এবং বাংলাদেশ-ভারত সড়ক যোগাযোগ। মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রনেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী বলেছেন, বৃষ্টি বন্ধ না হলে ঝুঁকিপূর্ণ আরও ৫-৭ স্থানে ভাঙন দেখা দিতে পারে। কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী গোলাম রাব্বী জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা করা হবে।
আমতলা বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন মনু প্রতিরক্ষা বাঁধে ভাঙন শুরু হলে গ্রামবাসী ও বিজিবি সদস্যরা বালুর বস্তা ফেলে ভাঙন ঠেকান। তবে বাঘজুর ও তেলিবিল গ্রামে বাঁধ ভেঙে পানি ঢুকে পড়ে। এতে বাঘজুর, তেলিবিল, চাঁনপুর, খাম্বারঘাট, শরীফপুর, বটতলা, সঞ্জরপুর গ্রাম তলিয়ে যায়। চাতলা সেতুর উত্তর দিকের বাঁধও ভেঙে নছিরগঞ্জ, ইটারঘাট, মনোহরপুর, নিশ্চিন্তপুর, মাদানগর গ্রাম প্লাবিত হয়।
টিলাগাঁও ইউনিয়নের বালিয়া গ্রামে ভাঙনে বালিয়া, সন্দ্রাবাজ, মিয়ারপাড়া, ডরিতাজপুর, লহরাজপুর, তাজপুরসহ ১০টি গ্রাম তলিয়ে যায়। পৃথিমপাশা ইউনিয়নের শিকড়িয়া ডোমাবিলে ভাঙনের ফলে শিকড়িয়া, গণকিয়া, আলীনগর গ্রাম প্লাবিত হয়। এছাড়াও রাজনগর উপজেলা কামারচর ইউনিয়নের ভোলানগর গ্রামে মনু নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে সৃষ্ট ভাঙনের ফলে ৭-৮টি গ্রাম তলিয়ে যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




  • ডিজাইনঃবেসিক নিউস২৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com